রবিবার, মার্চ ৩, ২০২৪
ব্যাংক খাতে ১৫ বছরে লোপাট হয়েছে ৯২ হাজার কোটি টাকা
ব্যাংক খাতে ১৫ বছরে লোপাট হয়েছে ৯২ হাজার কোটি টাকা

ব্যাংক খাতে ১৫ বছরে লোপাট হয়েছে ৯২ হাজার কোটি টাকা

প্রতিষিদ্ধ প্রতিবেদক
প্রকাশের সময় : December 23, 2023 | অর্থনীতি

ভুয়া কাগজপত্র দিয়ে ঋণ, অস্তিত্ববিহীন প্রতিষ্ঠানের নাম দিয়ে ঋণ ও বিদেশে অর্থ পাচারসহ ১৫ বছরে (২০০৮ সাল থেকে ২০২৩ সাল পর্যন্ত)  বিভিন্ন আর্থিক অনিয়মের মাধ্যমে ব্যাংক খাত থেকে লোপাট হয়েছে ৯২ হাজার ২৬১ কোটি টাকা।

২৩ ডিসেম্বর সকালে রাজধানীর ধানমন্ডিতে গবেষণা প্রতিষ্ঠান সিপিডির কার্যালয়ে ‘বাংলাদেশের অর্থনীতি ২০২৩-২৪: চলমান সংকট ও করণীয়’ শীর্ষক মিডিয়া ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানায় সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগ (সিপিডি)।

সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ফাহমিদা খাতুন বলেন, ভুয়া কাগজপত্র দিয়ে ঋণ, অস্তিত্ববিহীন প্রতিষ্ঠানের নাম দিয়ে ঋণ, অর্থ লোপাটসহ নানান ধরনের আর্থিক অনিয়ম হয়েছে।

তিনি বলেন, বিভিন্ন সময়ে ব্যাংকে যে স্ক্যাম বা অনিয়মগুলো হয়, সেগুলো অফিসিয়াল সূত্রে পাওয়া যায় না। সেগুলো সংবাদমাধ্যমে আসে। গণমাধ্যমকর্মীরা সেগুলো হয়তো অফিসিয়াল সূত্রেই আনেন। এগুলোকে কম্পাইল করেছি দেখার জন্য। ২০০৮-২৩ সাল পর্যন্ত গণমাধ্যমে ২৪টি ঘটনা প্রকাশ পেয়েছে। এসব ঘটনায় ৯২২ দশমিক ৬১ বিলিয়ন টাকা বা ৯২ হাজার ২৬১ কোটি টাকা আত্মসাৎ বা অপচয় হয়েছে। বিশাল এ অর্থ দিয়ে কী হতে পারে সেটা আপনারা হিসাব করতে পারেন। আপনারা হিসাব করতে পারেন আমাদের রাজস্ব ঘাটতি কত। সামাজিক নিরাপত্তা খাতে কত ব্যয় হচ্ছে, শিক্ষা-স্বাস্থ্য খাতে কত ব্যয় করছি। এই পরিমাণ টাকা দিয়ে আমরা কী করতে পারতাম।

তিনি আরও বলেন, এ টাকা আত্মসাৎ হচ্ছে, অপচয় হচ্ছে। ব্যাংকে যে টাকা, সেটি জনগণের টাকা। সেটা কীভাবে ব্যয় হচ্ছে তা চিন্তার বিষয়। সেই পরিপ্রেক্ষিতে ব্যাংকিং খাতে নিয়মকানুন বাস্তবায়ন ও সংস্কার একেবারেই জরুরি হয়ে পড়েছে।

ফাহমিদা বলেন, নিয়ম-কানুনের অভাব নাই। অনেক ভালো নীতিমালা আছে। সেগুলো বাস্তবায়ন হয় না। পরিদর্শন, পরিবীক্ষণ হয় না। যারা ঋণখেলাপির সঙ্গে জড়িত তারাই আবার নিয়ম করে দেন কেন্দ্রীয় ব্যাংককে যে, ঋণ রি-শিডিউল করা যাবে। এরকম বিশৃঙ্খল অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পেতে শক্তিশালী কেন্দ্রীয় ব্যাংক ও নীতিমালার বাস্তবায়ন দরকার।

এই টাকা কোথায় গেলো- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সেটা তো আমরা জানি না এই টাকাটা কোথায় গেলো? হয়তো বা এটার কিছুটা অর্থনীতিতে এসেছে। সেটা কতটুকু ব্যয় হয়েছে। এটার তথ্যটা আমাদের জানা নাই।

ফাহমিদা খাতুন বলেন, সংস্কার পদক্ষেপের মাধ্যমে অর্থনীতিতে ‍সুশাসন প্রতিষ্ঠা করা সহজ কাজ হবে না। কারণ কায়েমি স্বার্থগোষ্ঠী শক্তিশালী এবং সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো বিশেষ গোষ্ঠীর নিয়ন্ত্রণে রেখেছে।

অনুষ্ঠানে মূল প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ড. ফাহমিদা খাতুন। সিপিডির সম্মানীয় ফেলো অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান, গবেষণা পরিচালক ড. গোলাম মোয়াজ্জেম এসময় উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বর্তমান সময়ে অর্থনীতি অভূতপূর্ব চ্যালেঞ্জের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। যা কমে যাওয়ার লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না, এমনকি নির্বাচনের পরও না। নীতিনির্ধারকদের প্রধান কাজ হওয়া উচিত বর্তমান অর্থনৈতিক বাস্তবতা বিবেচনায় নিয়ে সামষ্টিক অর্থনীতির স্থিতিশীলতা পুনরুদ্ধার করা।

ফাহমিদা বলেন, অর্থনীতি এখন বহুবিধ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করছে এবং সত্যিকার অর্থে একটি সন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে আছে। একমাত্র আশা, নীতিনির্ধারকরা এটি বুঝবেন এবং স্বীকার করবেন যে, গতানুগতিক পন্থায় কাজ হবে না। কেবল নিঃস্বার্থ শক্তিশালী রাজনৈতিক নেতৃত্ব সংস্কারের কঠিন পথে যেতে পারে এবং অর্থনীতিকে উদ্ধার করতে পারে।

সরকার স্বার্থান্বেষী মহলের কাছে জিম্মি উল্লেখ করে ফাহমিদা খাতুন বলেন, এই মহল আরও শক্তিশালী হয়েছে। শুধু যোগ্যতার ভিত্তিতে নয়, রাজনৈতিক আনুকূল্যে সরকারি চাকরিতে প্রমোশন হয়ে থাকে। আর তাই সরকারি প্রতিষ্ঠানে সংস্কার প্রয়োজন। নির্বাচনের পর সবকিছু ঠিক হয়ে যাবে না।

মোস্তাফিজুর বলেন, অর্থনীতিতে এতগুলো চ্যালেঞ্জের মুখে আমরা আগে পড়িনি। সেটার একটা বড় ধরনের সমাধান হতে পারে আমাদের সুদহার ও বৈদেশিক বিনিময় হার; এই দুইটাকে যদি আমরা কিছুটা ঝুঁকি থাকবে, অন্যান্য ফিসক্যাল পলিসি- সরকারের অন্যান্য পলিসি দিয়ে সেগুলো সামাল দেয়ার ট্যুলস আছে। সেভাবে যদি আমরা যাই সামষ্টিক অর্থনীতিতে স্থীতিশীলতা আসবে।

আরো দেখুন:

বৈশ্বিক জ্বালানী শক্তি রূপান্তরে দক্ষিণ এশিয়ায় কমতে পারে আমদানি নির্ভরতা

 

প্রতিষিদ্ধ/এএফ